শুধুই সামাজিক সম্মানের কারণে, নিজের আত্মতৃপ্তির কারণে, পড়াশোনা করেছি বলেই প্রয়োজনীয় ইসলামি জ্ঞানে পিছিয়ে থেকে, নিজের সন্তানদের টিভি আর কাজের মানুষের কাছে বড় হতে দিয়ে, আল্লাহ অসন্তুষ্ট হন এমন পরিবেশে বাইরে কাজ করতে যাওয়াটা কি আমাদের দুনিয়া বা আখিরাতে কল্যাণ বয়ে আনতে পেরেছে? সম্মান কি সত্যিই আমরা পেয়েছি এর মাধ্যমে? অফিসে উচ্চপদে চাকরি করেও ঘরে ফিরে শারীরিক বা মানসিক নির্যাতনের শিকার হওয়ার চিত্র তো অহরহ দেখা যায়! তা যদি নাও হয়, অনেকেই সন্তানদের যথেষ্ট সময় দিতে না পারার মনোকষ্টে ভোগেন। সেই সাথে নিয়ন্ত্রণহীন টিভি দেখে ও মায়ের সাহচর্য ছাড়া বড় হয়ে বাচ্চারা যে অসংখ্য ভুল জিনিস শিখছে, সেই বিপদ তো আছেই। তবুও সামাজিক মর্যাদার কথা ভেবে চাকরির মোহ কাটানো হয়ে ওঠে না আমাদের। ভেবে দেখেছি কি, দুনিয়ার ফাঁদে পড়ে এই স্বল্প সময়ে আখিরাতের জন্য আমরা তাহলে কী সংগ্রহ করছি? সম্মান শুধুই পাওয়া সম্ভব সম্মানের মালিকের সাথে মজবুত সম্পর্ক স্থাপনের মাধ্যমে।

আমরা এখন সমাজের এমন একটা অবস্থা তৈরি করেছি যে, পড়ালেখা করে চাকরি না করলে বা কম ডিগ্রি অর্জন করে গৃহিণী হলে আমরা মনে করি সে বুঝি মেধাহীন, অকর্মণ্য। প্রশ্ন ছুঁড়ে দিই তার দিকে, “সারাদিন ঘরে বসে কী করো?” হ্যাঁ, যারা আসলেই গৃহিণী হয়ে টিভির সিরিয়ালগুলো দেখে সময় নষ্ট করছেন, তারা আল্লাহর কাছে সময়ের হিসাব কিভাবে দেবেন, তা ভেবে দেখা প্রয়োজন। কিন্তু যে গৃহিণীর দিনভর অক্লান্ত পরিশ্রমে তার সংসারে শান্তি-শৃঙ্খলা বজায় আছে, তাকে আপনি-আমি ছোট করে দেখার কে?
.
… এই মডারেট মুসলিমদের মধ্যে এমন লোকও আছেন যারা মেয়েদের গা থেকে ওড়না টেনে খুলে ফেলেছেন, মেয়েদের বোরকা নিয়ে পুড়িয়ে ফেলেছেন, মেয়েদের ঘরবন্দী করে রেখেছেন কেবল এরা সভ্য সমাজে চলার উপযোগী নয় বলে। অনেক ছেলেই বেয়াদব হয়ে যায় শুধু বাবা, চাচা কিংবা দাদার আগে দাড়ি রাখার কারণে! বিয়ের সময় এদের জন্য পছন্দমতো মেয়ে খুঁজে বের করা মুশকিল হয়ে যায়; কারণ মেয়ে পরিবারের পছন্দ হলে ছেলের পছন্দ হয় না, ছেলের পছন্দ হলে পরিবারের পছন্দ হয় না।

অন্যদিকে আছে ইসলামপন্থীদের সোনার পাথরবাটির সন্ধান। ছেলে সুন্দর এবং স্মার্ট হতে হবে, কিন্তু দাড়ি থাকার কারণে মেয়ে না করে দেবে; ছেলে শিক্ষিত এবং পয়সাওয়ালা হতে হবে, কিন্তু অবৈধ ইনকাম করতে পারবে না; শুধু ছেলে নয় ছেলের পরিবারকেও ইসলাম বিশেষজ্ঞ হতে হবে, চর্চা থাকুক বা না থাকুক।

আর মেয়ে হলে তো কথাই নেই। মেয়ে পর্দা করবে কিন্তু তাকে দেখতে নায়িকার মতো হতে হবে; মেয়ের বাপভাই থাকতে হবে এবং তাদের যথেষ্ট পয়সাওয়ালা হতে হবে; মেয়ে ছেলের পরিবার এবং তাকে উভয়কেই চমৎকৃত করতে হবে।

আমরা কবে ইসলামের আসল স্পিরিটটা বুঝব?
.
একটি বিখ্যাত কথা আছে ইংরেজিতে, “you are free to choose, but you are not free from the consequence of your choice. অর্থাৎ পছন্দের ক্ষেত্রে আপনি স্বাধীন হলেও পছন্দের ফলাফল মেনে নিতে আপনি বাধ্য।

অনেক তালা যেমন আছে অনেক চাবিও আছে তেমনি। আপনি কোন তালা খুলতে চান, কোন পথে যেতে চান, সেটা সম্পূর্ণ আপনার সিদ্ধান্ত। কিন্তু সে পথ যেখানে গিয়ে মিশেছে, আপনি সেখানেই গিয়ে পৌঁছুবেন। পথ অনেক। স্পষ্ট নরকের পথ যেমন আছে; তেমনি আছে দেখতে স্বর্গের পথের মতো কিন্তু কার্যত নরকের অনেক মত-পথ। কেবল মাত্র একটি চাবি সঠিক তালার, একটি পথ ইসলামের, যার গন্তব্য আমাদের আদি নিবাস জান্নাত।

একটি আসলের যদি একটি নকল হতো তাও মানুষ বেঁচে যেত; কিন্তু একটি আসলের যখন অনেকগুলো নকল হয়ে যায়, তখন বিভ্রান্তিই হয়ে ওঠে সাধারণ চিত্র। সব নকলের ভিড়ে আসলটি, আসল পথটি, আসল চাবিটি বেছে নেওয়ার জন্য আমাদের এ বইটি কিছুটা সহায়ক হবে আশা করি, ইনশা আল্লাহ।

specification

 

Text here Text here
Text here Text here
Text here Text here
Text here Text here
Text here Text here
Text here Text here
Text here Text here
Text here Text here
Text here Text here

Reviews

There are no reviews yet.

Be the first to review “চয়ন”
Review now to get coupon!

Your email address will not be published. Required fields are marked *

শিপিং ডিটেইলস

  • সারা দেশে ক্যাশ অন ডেলিভারি অর্থাৎ দেশের যেকোনো স্থানে বই হাতে পেয়ে মূল্য পরিশোধের সুবিধা।
  • ঢাকার ভেতরে ২৪ ঘণ্টায় বই হাতে পাবার নিশ্চয়তা। (ইনশাআল্লাহ)
  • ঢাকার বাহিরে ৪৮ ঘণ্টায় বই হাতে পাবার নিশ্চয়তা। (ইনশাআল্লাহ)
  • দেশের বাহিরেও আমরা DHL, FedEx এবং অন্যান্য মাধ্যমে বই ডেলিভারি করে থাকি। ( এক্ষেত্রে শিপিং চার্জ আপনার )

 

শিপিং এরিয়া শিপিং কস্ট ডেলিভারি টাইম
ঢাকার ভেতরে ৪০ টাকা ২০-২৪ ঘণ্টা
ঢাকার বাহিরে ৪০ টাকা ৪০-৪৮ ঘণ্টা
দেশের বাহিরে ডেলিভারি সার্ভিসের  নির্ধারিত  চার্জ ডেলিভারি সার্ভিসের নির্ধারিত সময়